May 30, 2024, 7:39 am
সর্বশেষ:
কুমিল্লা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল দপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের সত্যতা পেয়েছে দুদক  সেনাবা‌হিনীর বিরুদ্ধে উদ্দেশ‌্য প্রণোদিতভাবে প্রতিবেদন প্রচার করা হচ্ছে : সেনাপ্রধান আগামীকাল মেঘনা উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানদের শপথ কুলিয়ারচর রেলওয়ে স্টেশনে ১ দালাল আটক, ১০ হাজার টাকা জরিমানা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি হয়ে গেলে এ বিশিষ্ট নাগরিকদের আর পাওয়া যায় না : দুদক চেয়ারম্যান সাবেক আইজিপি বেনজীরের সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ সাবেক সহকারী কর কমিশনারের নামে মামলা করেছে দুদক মেঘনায় সেলাই মেশিন ও হুইল চেয়ার বিতরণ নদী খননের বালু বিক্রি করে সরকারি কোষাগারে আসতে পারে শতকোটি টাকা শনাক্তের পরও নিষিদ্ধ ঘনচিনি খালাসের সত্যতা পেয়েছে দুদক

সকলের সহযোগিতায় বেঁচে যেতে পারে ফজলুর রহমান।

২৮ মে ২০১৯ বিন্দুবাংলা টিভি. কম,

স্টাফ রিপোর্ট:কানাইঘাট উপজেলার মন্তাজগঞ্জ ইউনিয়নের মিকিরপাড়া গ্রামের আব্দুল করিমের ছেলে ফজলুর রাহমান সে একজন দিনমজুর এলাকার বিভিন্ন কাজ কাম করে জীবীকা নির্বাহ বা পরিবার চালিয়ে যাচ্ছিলো।

সে গত ৮ আগষ্ট ১৮ ইং( বুধবার) একি গ্রামের মর্তুজা আহমদের বাড়িতে কাজ করতে গিয়ে গাছের ডাল ভেঙে পড়ে যায় সকলের সহযোগিতায় উদ্ধার করে এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল নিয়ে গেলে জানা যায় তাহার লিঙ্গ, কম্বলের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি রগ ছিড়ে যায় দীর্ঘদিন থেকে অপারেশন এর অভাবে চিকিৎসকের দেওয়া ভিন্ন পথে চালিয়ে যাচ্ছে প্রশাব পায়খানা। নিজের পরিবারের অর্থনৈতিক অবস্থা খুব সুবিধাজনক না হওয়ায় সে এখন মৃত্যুর পথযাত্রী। এতদিন নিজে রুজি রোজগার করে পরিবার চালালেও এখন তাও একেবারে বন্ধ। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তাঁর চিকিৎসায় জন্য প্রায় লক্ষাধিক টাকা খরচ হবে। প্রাথমিক চিকিৎসার তিন মাস পরে অপারেশন করার কথা জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। কিন্তু অভাবী ফজলুর রহমানের পরিবার আজ পর্যন্ত এত টাকা জোগার করা সম্ভব হয়নি। শুধু তাই নয়, এক সাথে কখনো এত টাকা জোগার করতে পারবেনা ফজলুর রহমানের অভাবগ্রস্থ পরিবার। তাই অনিশ্চিত জীবনের দিকে এগুচ্ছে ফজলুর রহমান। সে এখন সবার ভালোবাসায় বাঁচাতে চায়। ফজলুর রহমান জানায়, আজ আমি নিঃস্ব। যেখানে আজ আমার স্বপ্নের দিন গুনার কথা সেখানে আজ আমি মৃত্যুর দিন গুনছি। কয়েক বছর থেকে দিনমজুর হিসেবে কাজ করলেও মুটামুটি ভালোই চলছিল আমাদের অভাবের পরিবার। উপযুক্ত সময়ে বিয়ের পিড়িতে এসে আজ তিন সন্তানের জনক তিনি বর্তমানে জকিগঞ্জ উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নে সাতঘরি গ্রামের শশুর রখন মিয়ার বাড়ীতে থাকে দীর্ঘদিন থেকে আছেন। শশুর রখন মিয়ার অর্থনৈতিক অবস্থা খুব সুবিধাজনক না নিজে থানাবাজারে পাহারাদারি বেতন কোন রকম পরিবার চালিয়ে যাচ্ছেন। ফজলুর রহমান জানায় অর্থাভাবে বেশীদূর চিকিৎসা নেয়া সম্ভব হচ্ছে না। হৃদয়বান ব্যক্তিবর্গের সহানুভূতি না পেলে আমার আর এ স্বপ্নের পৃথিবীতে বেঁচে থাকা অনিশ্চিত। আমি এখন বেঁচে থাকতে মহান আল্লাহর নিকট প্রার্থনার পাশাপাশি সকল হৃদয়বান ব্যক্তিবর্গের আর্থিক সহযোগিতা প্রত্যাশী। আমি দৃড় আশাবাদী, সবার প্রচেষ্টায় নতুন জীবন আমি ফিরে পাবো।

স্থায়ী ঠিকানা: ফজলুর রাহমান পিতাঃ আব্দুল করিম গ্রামঃ মিকিরপাড়া ডাকঃ দনাবাজার কানাইঘাট।
বর্তমান ঠিকানা: গ্রামঃ সতঘরি জকিগঞ্জ, সিলেট।
মোবাইল +৮৮০১৭৯৮০০৫৬৪৮ (নাম্বার বিকাশ)


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন


ফেসবুকে আমরা